Tuesday, October 4, 2022
spot_imgspot_img

যেসব ব্যাবসার মাধ্যমে প্রতিদিন আয় হবে ৫ হাজার টাকা

ব্যবসা আমরা সবাই করতে চাই। আর যদি আমরা ব্যবসা করে প্রতিদিন চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা আয় না করি, তাহলে আমরা যেন কোন প্রকার লাভ পাই না মনেহয়। ঠিক কোন ব্যবসাটি অল্প সময়ে বাজারে চাহিদা রেখে প্রতিদিন চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা আয় করতে পারে? শুধু ভাবুন!

আজকের আর্টিকেলে আপনি ব্যবসা করে, প্রচুর অর্থ উপার্জনের কিছু ধারণা জানতে পারবেন। কিভাবে আপনি কম খরচে একটি ভাল ব্যবসা করতে পারেন এবং কোন অতিরিক্ত মূলধন ছাড়াই প্রতিদিন ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা আয় করতে পারেন সেটা জানতে পারবেন।

ব্যবসা করে আপনি প্রতি মাসে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারেন কিন্তু এখানে সমস্যা হল আমাদের মধ্যে অনেকেই কিভাবে ব্যবসা করতে হবে এবং কোন ব্যবসা দিয়ে ব্যবসা শুরু করতে হবে তা নির্ধারণ করতে হিমশিম খাচ্ছে। 

এই বিষয়ে আমরা আপনার সাথে এমন কিছু ব্যবসার কথা আলোচনা করব যার মাধ্যমে আপনি আপনার প্রতিভা ব্যবহার করতে পারেন এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করে প্রতি মাসে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারেন। 

ব্যবসা হল একটি প্লাটফর্ম যেখানে আপনাকে নিজের প্রতিভা এবং কঠোর পরিশ্রম ব্যবহার করে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। এবং এই প্রবন্ধে আপনি কীভাবে ব্যবসায় সফল হতে পারেন তার মূল বিষয়গুলি নিয়েও আলোচনা করা হবে।

ইন্টারনেটের মাধ্যমে ব্যবসা করা

বর্তমানে আমাদের সমাজে ইন্টারনেট এর ব্যবহার অনেক । পৃথিবীর উন্নয়নের সাথে সাথে ইন্টারনেট এর ব্যবহার ও প্রচুর বেড়েই চলেছে । আমাদের বাস্তব জীবনে ইন্টারনেটের অনেক ব্যবহার হয়ে থাকে । ইন্টারনেট ব্যবহার করে অনলাইনের মাধ্যমে ব্যবসা করা সম্ভব । বর্তমানে কাস্টমার বা গ্রাহকরা ঘরে বসে নিজেদের প্রয়োজনীয় পণ্যটি অনলাইনে কি কমার্স ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে যেকোনো পণ্য ক্রয় করতে পারে । পণ্য কেনা থেকে শুরু করে পণ্যের দাম পরিশোধ পর্যন্ত সকল কার্যক্রম অনলাইনে করা সম্ভব । বর্তমানে অনলাইনে কেনাকাটা (E-Commerce) এর ব্যবহার কেবলমাত্র বেড়েই চলেছে । সেইসাথে বাড়ছে আমাদের অনলাইনে ব্যবসা করার অনেক সুযোগ । আমরা অনলাইনে ব্যবসা করে অনেক লাভবান হতে পারি । অনলাইনের মাধ্যমে ব্যবসা করার জন্য আমাদের কিছু জিনিস প্রয়োজন হবে ।

অনলাইন ব্যবসা : অনলাইনে ব্যবসা করার জন্য কি কি প্রয়োজন

  • আপনাকে একটি নির্দিষ্ট স্থান বা অঞ্চল লক্ষ্য করে আপনার অনলাইন ব্যবসা শুরু করতে হবে।
  • আপনার মোবাইল ফোন এবং ইন্টারনেট সংযোগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
  • আপনার পণ্য / পণ্য মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে একটি ই-কমার্স সংস্থার প্রয়োজন হবে। এটি একটি ওয়েবসাইট বা একটি ফেসবুক পৃষ্ঠা এবং একটি ইউটিউব চ্যানেল হতে পারে। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আপনি আপনার পণ্যের প্রচার করতে পারেন এবং গ্রাহকরা তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী সেখান থেকে আপনার পণ্য অর্ডার করতে পারেন।
  • আপনাকে সব সময় নতুন পণ্য বিক্রি করতে হবে।
  • আপনাকে সব সময় আপনার গ্রাহকদের সাথে ভাল ব্যবহার করতে হবে।
  • পণ্যের হোম ডেলিভারির জন্য একটি সাইকেল বা মোটরসাইকেল প্রয়োজন হবে। আপনি চাইলে হোম রাইড শেয়ারিং অ্যাপ এর সাহায্য নিতে পারেন।
  • আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে যে আপনার পণ্যগুলি ভাল এবং দর্শকরা সেগুলি পছন্দ করে।
  • নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আপনার পণ্য গ্রাহকদের কাছে পৌঁছে দিন। এটি আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রতি গ্রাহকদের আস্থা বাড়াবে।

হস্তশিল্প ব্যবসা-

হস্তশিল্প ব্যবসা আজকের অন্যতম জনপ্রিয় ব্যবসা। হস্তশিল্প ব্যবসার মাধ্যমে আপনি সহজেই প্রতিদিন ৩-৫ হাজার টাকা উপার্জন করতে পারেন। অনেক মানুষ এখন এই হস্তশিল্পের ব্যবসায় জড়িত এবং এর মাধ্যমে তারা জীবিকা নির্বাহ করছে। আমাকে বলুন কে ঘর সাজাতে পছন্দ করে না! হস্তশিল্পগুলি ঘর সাজানোর এবং বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত হয়। হস্তশিল্পের ব্যবসা করার একটি দুর্দান্ত সুযোগ হল হস্তশিল্পের ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনার প্রচুর পুঁজির প্রয়োজন হয় না। আপনি খুব কম স্টার্ট আপ খরচ দিয়ে আগামীকাল আপনার নিজের বাড়ি ভিত্তিক ব্যবসা শুরু করতে পারেন। আপনি যদি হস্তশিল্প তৈরিতে পারদর্শী হন তাহলে আপনি এই প্রতিভা ব্যবহার করে প্রতি মাসে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারেন। আপনি আপনার হস্তশিল্প অনলাইনে ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করতে পারেন। নিচে কিছু হস্তশিল্প নিয়ে আলোচনা করা হল।

কাঠের তৈরি জিনিসপত্র-

আপনি ই-কমার্স ওয়েবসাইটে বা বাজারে কাঠের তৈরি বিভিন্ন জিনিস বিক্রি করে প্রতি মাসে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারেন। আজকাল কাঠের পণ্যের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। আপনি যদি কাঠের কাজ জানেন এবং কাঠ দিয়ে বিভিন্ন জিনিস তৈরি করতে পারেন তাহলে আপনি কাঠের পণ্য বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। কাঠ সাধারণত ঘরের বিভিন্ন আসবাবপত্র তৈরিতে ব্যবহৃত হয় যেমন চেয়ার, টেবিল ইত্যাদি এবং ছবির ফ্রেম, বিভিন্ন সাজসজ্জার দোকান এবং কাঠের ম্যাক, বিভিন্ন ধরনের শিশুদের খেলনা ইত্যাদি আপনি সহজেই কাঠের জিনিসপত্র বিক্রি করতে পারেন। আপনি যদি কাঠের জিনিস তৈরিতে ভালো হন, তাহলে আপনি কাঠের জিনিস তৈরি করে বিক্রি করে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

মাটির তৈরী জিনিশপত্র-

আমাদের দেশের কুমারদের তৈরি হস্তশিল্প আধুনিকতার ছোঁয়ায় হারিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু তারপরও মাটির পাত্রের চাহিদা আছে। অনেক ধরনের মাটির পাত্র ব্যবহার করা হয় বিভিন্ন ধরনের আসবাবপত্র এবং ঘরের খেলনা তৈরির জন্য বাসন এবং শিশুদের খেলনা সহ। বর্তমানে মাটির পাত্রে পাত্রের চাহিদা কম কিন্তু ঘর পরিপাটি করার জন্য শো -পিস ইত্যাদির চাহিদা বেশি। মাটির পাত্র সকলের প্রিয়। আপনি যদি মাটির পাত্র তৈরি করতে পারেন, তাহলে এটি আপনার ব্যবসার জন্য একটি বড় আয়ের উৎস হতে পারে। আপনি প্রধান ই-কমার্স কোম্পানীর সাথে যোগাযোগ করে বা আপনার নিজস্ব ই-কমার্স কোম্পানি তৈরি করে ক্রেতাদের কাছে আপনার পণ্য পৌঁছে দেওয়ার মাধ্যমে অনলাইনে মাটির জিনিস তৈরি করতে পারেন। মাটির পাত্র তৈরিতে আপনার খুব বেশি পুঁজির প্রয়োজন নেই। এটি একটি বড় সুযোগ।

পুতুল তৈরীর ব্যাবসা-

পুতুল ছোট থেকে বড় প্রায় সবার প্রিয় জিনিস। পুতুলগুলি প্রচুর ব্যবহৃত হয়, বিশেষত ছোট বাচ্চাদের খেলনা হিসাবে। পুতুল ব্যবসা হস্তশিল্পের অন্যতম সেরা ব্যবসা। আজ বাজারে অনেক ধরনের পুতুল পাওয়া যায়, যার মধ্যে মাটির পুতুল, তুলা বা পাটের পুতুল, কাঠের পুতুল ইত্যাদি। পুতুল তৈরির ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনার অনেক পুঁজির প্রয়োজন নেই, আপনি একটু পুঁজি দিয়ে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। পুতুল বানিয়ে আপনি পুতুলগুলো বাজারে বিক্রি করতে পারেন ই-কমার্স ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অথবা বাজারের দোকানদারদের সাথে পরামর্শ করে। পুতুলের ব্যবসা বর্তমানে একটি লাভজনক ব্যবসা।

পাটি বা কার্পেট এর ব্যাবসা-

কার্পেট বা পাটি দৈনন্দিন জিনিসগুলির মধ্যে একটি। বর্তমানে সব পরিবারেই কার্পেট বা পাটি ব্যবহার দেখা যায়। কার্পেট সাধারণত নারকেলের ভুষি এবং পাটের দড়ি দিয়ে তৈরি হয়। সামান্য মূলধন সহ কার্পেট ব্যবসা অন্যতম লাভজনক ব্যবসা। আপনি এগুলি তৈরি করতে পারেন এবং ই-কমার্স ওয়েবসাইটে বা বাজারে বিক্রি করতে পারেন।

এখানে যেসব ব্যাবসা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে তা হয়তো আপনি বুঝতে পারছেন। এই সব ব্যাবসার মাধ্যমে আপনি প্রতিদিন ঘরে বসে চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। ব্যবসার বিষয়টি সম্পূর্ণরূপে আপনার প্রতিষ্ঠানের উপর নির্ভর করবে। আপনি যেভাবে বাজারজাত করেন এবং আপনার পণ্যের মূল্য কত তা আপনার উপর নির্ভর করবে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে প্রতিদিন চার থেকে পাঁচ হাজার টাকায় এসব পণ্য বিক্রি করে আয় করা সাধারন বিষয়।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আমাদের ফলো করুন

2,258FansLike
1,069FollowersFollow
1,569FollowersFollow
- Advertisement -spot_img

আরোও পড়ুন